শুক্রবার, ০৭ মে ২০২১, ১০:২৩ অপরাহ্ন

শিরোনামঃ
কালিগঞ্জ সীমান্তে অবৈধ ভারতীয় গলদা রেনু সহ ৩ চোরাকারবারি আটক সিরাজগঞ্জে মুজিব ফোর্সের কমিটি গঠন মধুপুরে ধান কর্তন উৎসব এর শুভ উদ্ভোধন করলেন কৃষিমন্ত্রী ড.আব্দুর রাজ্জাক এমপি ফেনীতে ১১ বছরের শিশুকে গলাকেটে হত্যা: ১৭ বছরের বালক আটক কালিগঞ্জের কৃতি সন্তান আবুল কালাম আজাদ পুলিশ সুপার হলেন ফেনীতে ছেলে করোনা আক্রান্ত শুনে মায়ের মৃত্যু, ১০ দিন পর ছেলেরও মৃত্যু নাগরপুরে দপ্তিয়ার ইউনিয়নে প্রধানমন্ত্রীর উপহার বিতরণ টাঙ্গাইলের মধুপুরে হিজড়াদের মধ্যে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ চৌহালীতে বাংলাদেশ এ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ সার্ভিস এ্যাসোসিয়েশনের উদ্যোগে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ ফেনীতে সানরাইজ ফাউন্ডেশনের ইফতার ও দোয়া

ফেনীতে সিএনজি ভাড়া নিয়ে টালবাহানার অন্ত নেই:যাত্রী ৫ জনই আছে; কিন্তু ভাড়া দ্বিগুন

ফজলুল করিম হৃদয়, ফেনী প্রতিনিধি:

ফেনী শহরের অভ্যন্তরে চলাচল করা সিএনজি চালিত অটোরিক্সায় ইচ্ছা মাফিক ভাড়া আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। স্বাভাবিক সময়েরমত যাত্রী ৫ জন বহন করেও ৭ টাকার ভাড়া ১৫ টাকা নেয়ায় নিয়মিত চলাচলকারী যাত্রীদের মাঝে ক্ষোভ ও অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। মাঝে মধ্যে সড়কেই যাত্রীদের সাথে চালকদের বাকবিতন্ডা ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটলেও কর্তৃপক্ষের নিরবতায় জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।
ফেনী শহর ঘুরে দেখা যায়, ফেনী শহরের মহিপাল থেকে ট্রাংক রোড, ট্রাংক রোড থেকে হাসপাতাল মোড ও ছালাউদ্দিন মোডে নিয়মিত ৫শতাধিক সিএনজি চলাচল করে। ইতোপূর্বে ফেনী পৌরসভা কতর্ৃপক্ষ এসব রুটে ভাড়া নির্ধারণ করে দিলেও তা বাস্তবায়নে কোন পদক্ষেপ নেয়নি। ফলে সিএনজি চালকরা যাত্রীদের জিম্মি করে ইচ্ছা মাফিক দ্বিগুন থেকে তিনগুন পর্যন্ত ভাড়া আদায় করছে। বিশেষ করে করোনা পরিস্থিতিতে এ ভাড়া আদায়ের হার আরো বেড়ে গেছে।
করোনাকালীন সময়ে ফেনীতে গত ৪ এপ্রিল সোমবার সকাল ৬টা থেকে থেকে জন্য লকডাউন ঘোষণা করে প্রশাসন। ওই সময়ে শহরে কোন যাত্রীবাহী পরিবহন প্রবেশ ও বাহির হওয়ার ক্ষেত্রে বিধি নিষেদ আরোপ করায় শহরের এ রুট গুলোতে সিএনজির সংখ্যা কমে যায়। এ সুযোগে ফেনী শহরের ট্রাংক রোড থেকে ছালাউদ্দিন মোড, মহিপাল ও হাসপাতাল মোডের ভাড়া ৭ টাকার স্থলে ২০ টাকা পর্যন্ত আদায় করতে দেখা গেছে। সরকারী বিধি মোতাবেক জরুরী পরিবহনের ক্ষেত্রে সিএনজিতে ৩ জন যাত্রীর বেশি নেয়ার নিষেধাজ্ঞার তোয়াক্কা না করে আগেরমত ৫ জন যাত্রী নিয়েও অস্বাভাবিক ভাড়া বৃদ্ধির ঘটনায় যাত্রীদের মাঝে ক্ষোভ ও অসন্তোষ দেয়া দিয়েছে। কখনো কখনো সড়কেই সিএনজি চালকের সাথে যাত্রীদের বাকবিতন্ডা ও হাতাহাতির ঘটনাও ঘটছে।
ফেনী শহরের বস্ত্র ব্যবসায়ী মো. আমিনুল ইসলাম জানান, মহিপাল থেকে ট্রাংক রোডের নির্ধারিত ভাড়া ৭ টাকা। লকডাউনের ঘোষণার সাথে সাথেই চালকরা স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা না করে গাদাগাদি করে যাত্রী বোঝাই করছে। আবার ৭ টাকার ভাড়া ১০ থেকে ২০ টাকা আদায় করছে। বিষয়টি নিয়ে যাত্রী ও চালকদের মাঝে সব সময়ই বাকবিতন্ডা হচ্ছে। এখন পর্যন্ত কতর্ৃপক্ষ এ বিষয়ে কোন সিদ্ধান্ত না দেয়ায় দিনদিন যাত্রীদের মাঝে ক্ষোভ ও অসন্তোষ বাড়ছে।
ফেনী শহরে নিয়মিত সিএনজি চালক আফাজ উদ্দিন জানান, তিনি স্বাস্থ্যবিধি মেনে ৫ জন যাত্রীর স্থলে ৩ জন নিয়েই যাতায়াত করেন। তাই ভাড়াটা বাড়িয়েছি। সিএনজি কম থাকায় কখনো কখনো যাত্রীরা জোর করে গাড়ীতে উঠে যান। তখনতো তাদেরকে নামিয়ে দেয়া যায়না।
এদিকে ফেনী পৌরসভার মেয়র নজরুল ইসলাম স্বপন মিয়াজী জানান, ফেনী শহরে চলাচলকারী সিএনজি চালকদের বিরুদ্ধে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ আমি জেনেছি। আমরা দ্রুত এবিষয়ে মালিক ও চালকদের সাথে বসে প্রয়োজনীয় সিদ্ধান্ত নেবো। অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করে যাত্রীদের হয়রানীর বিষয়টি কোন ভাবেই মেনে নেয়া হবেনা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

© All rights reserved
error: Alert: Content is protected by Frilix Group